Home কবিতা উপল বড়ুয়া >> কবিতাগুচ্ছ

উপল বড়ুয়া >> কবিতাগুচ্ছ

প্রকাশঃ June 9, 2018

উপল বড়ুয়া >> কবিতাগুচ্ছ
0
0

উপল বড়ুয়া >> কবিতাগুচ্ছ

 

 

জল

 

যদি ডুবে যাই
যদি ডুবে মরে যাই
কোন একদিন ডুবে ডুবে
জল খেতে গিয়ে জলের ডেরায়
যদি ডুবে যাই জলের লোভে উজ্জ্বল
জলের ধারায় গোঙাতে গোঙাতে জলীয়
বাষ্পে আমারও মুখচ্ছবি যদি ভাসে দুপুরের
বিচ্ছুরিত রোদে যদি বলি পুনর্বার জলকে চল
যদি জল ভাসে নৌকার উপর আর ভাষাগত কারণে
জলকে নিয়ে চলে যায় কলকাতার সুনীতি মাঝি যদি জল
তোমাকে কপালের মাঝখানে রেখে যদি তোমার কপালে থেকে
খুলে নেয়া যায় কালো টিপ আর তোমার ভরাট চোখকে আরো বেশি
জলের ভেতর নিশ্চুপ ঘন অন্ধকারে জেগে ওঠে আমার নিবিড় মাৎস্যন্যায়
ফিরে আসো জল আজ জলের ভেতর দুজনে ভাষাগত রূপ ছাড়িয়ে ছড়ায় জলান্তে

 

 

বউ

 

 

একটা বউয়ের কথা আমি বহুবার ভেবেছি। ঠোঁট ফোলা কাঁচা বউ। আচমকা যার কাঁচুলি খুলে বলা যায়—ক্ষুধা লাগছে। অথবা অফিস থেকে ফিরেই যাকে জড়িয়ে ধরা যাবে রান্নাঘরে। হালকা আগুনে—ঈষদুষ্ণ তেলে; চামচে নাড়া দিতে দিতে যাকে নিয়ে কাটানো যায় এক ক্রিসপি সন্ধ্যা। তারপর দু’জনে এক হয়ে বসা যেতো কফি ও সিগারেট হাতে; ক্যাকটাস ও টাইমফুল ঝুলানো বারান্দায়।

ঘরে একটা বউ থাকা ভালো। বউ থাকলে বলতে পারতাম— আসো বউ, তোমারে ঘোড়াতে চড়াই। লাজুক স্বভাবের বউ লজ্জা ঢেকে হয়তো বলতো—‘আগে খেয়ে নাও।’ তারপর মধ্যদুপুরে নিজস্ব বউয়ের খোঁপা খুলে দিয়ে দেখতাম—অপরাহ্নে বৃষ্টি নামে কিনা।

তুমি একটা বউ হলে ভালো হইতো। বলা যেতো—‘ভোরে উঠবা তো? সকালে আর ভাল্লাগেনা অফিসে যেতে। তোমাকেও যদি নিয়ে যাওয়া যেতো সঙ্গে…।’ কিংবা তোমার ঠোঁটে লিপস্টিক লাগাইতে লাগাইতে যদি তোমারেও লাগানো যেতো চমৎকার ! তুমি বউ—মধ্যরাতে তিন পেগের বদলে সাত পেগ খেয়ে ফেললে রাগারাগি কইরো না। বেশি ভালোবেসে ফেললে পেগের পরিমাণ বেড়ে যায়। যেহেতু আমরা জানি—ট্যু মাচ লাভ উইল কিল য়্যু ভেরি স্যুন।

 

 

ইন্ট্রোভার্ট

 

 

বাহিরে তো গরম
বাইরে কোলাহল
চারদিকে খালি পুলিশের পাহারা
চতুর্দিক কেবল গোঁয়ার বেয়াড়া
আন্ধার ভাল; আলো তো ফাউল
দূরে কোথা না গিয়ে অন্যত্র চল
আজ কি আমাদের হবে না ডেট
চলো যাই তবে লিটনের ফ্ল্যাট।

 

 

এইসব দেখানাদেখির ভেতর

 

 

তোমারে দেখি—তুমি দূর হ’তে দেখা ঘাসের ডগা
নৌকা চালায়া যাও নৌকা বোঝাই শিশির ভেজা
তুমি যাইতেছো যোজন বহুক্রোশ হন্তদন্ত কোথায়
তোমার সবুজ পরনে শাড়ি ছিঁড়ে আঙুলের ডগায়
তাকাইয়া দেখো—পানিহীন নদী তীব্র আঁকাবাঁকা
তোমারে দেখি—তুমি একটা পক্ষী মতোন হালকা
যাইতেছো উড়ে আকাশমার্গে আঁকতেছো ছায়া
মনে লয় তারে ধরে আনি বেঁধে ওহে বিভ্রম কায়া
তোমারে দেখি—তুমি দূর হতে দেখা তামাক পাতা
ধিকি ধিকি জ্বলা রিদয় আর ঠোঁটের চিহ্নিত ব্যথা

 

 

ধ্বজঃবন্ধ

 

 

আহারে ধ্বজা, শাদা শাদা ধ্বজা
পড়িয়া গেলো ভেঙে।
উড়াইতে যদি না পারিলা তবে
যাইলা ক্যান সঙে?

আহারে ফুল, তাকাইছে ফুল
আকাশে মুখ করে।
আপোষে যদি গেলা ছিঁড়তে তো
কাঁপিছো ক্যান ডরে?

সাঁতারে যদি যাও বিনীত জ্ঞানে
ষড়রিপু দারোগা
কোমর ও কাঁধে ফোটাও তলপেটে
পৌরষিক শ্লাঘা।

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন

লেখাগুলো সামাজিক মাধ্যমে শেয়ার করুনঃ

LEAVE YOUR COMMENT

Your email address will not be published. Required fields are marked *

hijal
Close