Home কবিতা তুষার কবির >> কবিতাগুচ্ছ

তুষার কবির >> কবিতাগুচ্ছ

প্রকাশঃ April 8, 2018

তুষার কবির >> কবিতাগুচ্ছ
0
0

তুষার কবির >> কবিতাগুচ্ছ

 

 

স্বরগ্রাম
শ্বেতপায়রার পাখসাটে উড়ে আসা
এই স্বরগ্রাম—খড়কুটোর খোলনলচে খুলে
জেগে ওঠা এই গান—
তুমি কি আমাকে আজ শুনতে পাচ্ছ
দূর থেকে ভেসে আসা রক্তবীজ প্রাণ?

হাওয়া আমাকে ডেকে নিচ্ছে দ্যাখো
কোনো এক সুরের ডেরায়—নিয়ে যাচ্ছে
ঘুমঘোর এক সরোবরে—
ডাহুকী ও ডাকিনীর বুক চিরে
দূরের সরোদ ওঠে বেজে সান্ধ্যস্বরে!

ধূলিপথে ধীরপায়ে আমি যাই হেঁটে
সেই জলভ্রমে—যার তিয়াসার ফেনাপাত্রে
ভেসে ওঠে শুধু রক্ত বুদ্বুদ—ফেলে দেয়া হাড়ের মর্মর—
আর মৃত নর্তকীর ঘ্রাণ!

রেস্তোরাঁর সেরেনাদে শুধু শোনা যায়
ঘুমপিয়ানোর সুর—স্বরময় সরাইখানায় জেগে ওঠে
নৈশগীতি—শব্দ প্রসবের টান!

শ্বেতপায়রার রক্তপালকেই তবে লেখা হবে
এই ভাঁজপত্র—রণরক্তগান?

 

 

বীণা
রক্তচন্দনের বনে—বুঝি হারিয়ে ফেলেছি সেই নোটবুক—যার শাদা পাতা জুড়ে লেখা ছিল সুরহীন ঘুমের মল্লার। পাখোয়াজ ভাঁজ খুলে দেখি তোমার হারানো বীণা বেজে ওঠে কার্নিশের রেখাপথে।

এই বসন্ত দুপুরে, মৃদু হাতে সুর তুলে কে বাজিয়ে যায় দরবার-ই-কানাড়া? ঘরভর্তি নিমের সুবাসে আসে দখিনের মাতাল হাওয়া। তুমিই তবে এই কুরুক্ষেত্রে লিখে চলেছ যত দুঃখগাথা—গোধূলির ধূলিওড়া পথে?

ধূলিখামে চিঠি আসে—দুই কান পেতে আমি শুধু শুনে চলি বাগদেবীর কড়া নাড়া!

 
বেহালা
বিকেলের ভাঁজপত্র খুলে
তুমি পেয়ে গেছ হারানো পুরাণ কথা
ঘোটকীর হ্রেষালিপি
আর ঘুমবেহালার ছড়—

কাহারবা বেজে ওঠে ধীরে ধীরে
শহরের শেষ রেখাপথে—

শোনো, ওটা ছিল এক ঝাড়বাতিঅলা বাঈজিমহল—
খিলানের ছায়াভ্রমে
আজো শোনা যায়
শ্বেতাভ কাকাতুয়ার সান্ধ্যগান—
ঝিনুকের অনুষ্টুপ
আর ভ্রমরের স্বরগ্রাম!

জানি, তুমি হারিয়ে ফেলেছ সব স্বর—
পাতার ডেরায় ডুব দিয়ে
তুমি শুনে যাচ্ছ শুধু জমে থাকা জলের লিরিক!

 
মিউজিকরুম
জলের পয়ার বাজে ধীরে ধীরে
এই কাচঘেরা মিউজিকরুমে—
পাখোয়াজ খুলে দিয়ে গান গায়
বিকেলের জলডাহুকের প্রাণ!

শাদা বেড়ালের আত্মা উঠে আসে
দ্যাখো প্লানচেট ভোরে—
আর হরিণের ছালে ঢাকা পড়ে থাকে
শুধু একজোড়া ঠান্ডা স্তন!

ঘুঙুরের দানা যেন গড়িয়ে পড়ছে
তোমার শাড়ির ভাঁজ থেকে—
দোয়েলের লগবুকে লেখা হতে থাকে
রাতচেরা আরক পেয়ালা!

কার্নিশের ছায়াভ্রমে দ্যাখো
বেজে যেতে থাকে ঘুমঘোর সুরের বেহালা!

 
পিয়ানো
অরণ্যের গান শোনো; দূরগামী পাতার পয়ারে কে যেন বাজিয়ে যায় রাতচেরা সুরের বেহালা।

হেমন্তের তারবার্তা কাঁধে নিয়ে—ধূলিওড়া গোধূলির পথে—মুঠোভরা চিঠি হাতে হেঁটে যায় এক অলীক পিয়ন।

কড়ই পাতার মত তিরতিরে হাওয়ায় দ্যাখো অপেরার ঘ্রাণ জাগে নদীতীরে—নীলকণ্ঠি ডাহুকীর বুক চিরে জেগে ওঠে বিকেলের রাধাচূড়া—শঙ্খবুক ছাতিম বালিকা।

আর আমি বসে আছি ডালিমের দানাঝরা এক কুঠুরিতে—হেমন্তের স্বর জাগে—পিয়াল ডালের নিচে বেজে যায় একটানা হেমন্ত ক্বাসিদা।

হাওয়া ও হরিদ্রায় ডুবে আমি শুধু শুনে যাই দূরের পিয়ানো!

 

উৎস

২০১৮ সালের বইমেলায় প্রকাশিত গ্রন্থ ধূলি সারগাম

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন

লেখাগুলো সামাজিক মাধ্যমে শেয়ার করুনঃ

LEAVE YOUR COMMENT

Your email address will not be published. Required fields are marked *

hijal
Close