Home অনুবাদ রোজা লুক্সেমবার্গ > নির্বাচিত রচনা সংকলন [পর্ব ৯] >> অদিতি ফাল্গুনী অনূদিত

রোজা লুক্সেমবার্গ > নির্বাচিত রচনা সংকলন [পর্ব ৯] >> অদিতি ফাল্গুনী অনূদিত

প্রকাশঃ March 21, 2018

রোজা লুক্সেমবার্গ > নির্বাচিত রচনা সংকলন [পর্ব ৯] >> অদিতি ফাল্গুনী অনূদিত
0
0

রোজা লুক্সেমবার্গ > নির্বাচিত রচনা সংকলন [পর্ব ] >> অদিতি ফাল্গুনী অনূদিত

 

[সম্পাদকীয় নোট : প্রিয় পাঠক, আবার শুরু হলো রোজা লুক্সেমবার্গের সারা জাগানো অনূদিত লেখা। নানা কারণে ধারাবাহিক এই লেখাটির প্রকাশ বেশ কয়েক মাস বন্ধ রাখতে হয়েছিল। এ জন্যে আমরা পাঠকদের কাছে আন্তরিকভাবে দুঃখ প্রকাশ করছি। এখন থেকে এটি আবার নিয়মিত তীরন্দাজে প্রকাশিত হবে। আমরা চেষ্টা করবো সপ্তাহের একটা নির্দিষ্ট দিনে এর একটা পর্ব প্রকাশ করতে। আশা করি, আপনারা আগের মতোই তীরন্দাজের সঙ্গে থাকবেন পাঠে ও প্রতিক্রিয়ায়।]

 

সঞ্চয়ের ঐতিহাসিক শর্ত, ‘পুঁজির সঞ্চয়’ (দ্য অ্যাকুমুলেশন অফ ক্যাপিটাল) থেকে

 

মার্কসের বৃত্তে যেমনটা প্রস্তাব করা হয়েছে সেভাবেই যদি, স্থির/ধ্রুব এবং পরিবর্তনশীল পুঁজির ভেতর ৫:১ মাত্রায় অপরিবর্তনশীল অনুপাত বিরাজ করে, তবে সেক্ষেত্রে উদাহরণ হিসেবে হলেও আমরা ধরে নেব যে পুঁজির এই বৃদ্ধি তার গঠনের প্রগতিশীল পুনর্বিন্যাস দ্বারা অন্বিত। ধ্রুব ও পরিবর্তনশীল পুঁজির ভেতর এই অনুপাত দ্বিতীয় বছরে হয়ে দাঁড়ায় ৬:১, তৃতীয় বছরে হয় ৭:১, চতুর্থ বছরে হয় ৮:১। আমরা যদি আরো অনুমান করি, তবে দেখতে পাব যে উদ্বৃত্ত মূল্যের হার শ্রমের উচ্চতর উৎপাদনশীলতা অনুযায়ী বাড়ে, যাতে করে প্রতিটি ক্ষেত্রেই এই বৃত্তে নির্দেশিত অনুপাতের সমপরিমাণ অঙ্কই আমরা পাই। যদিও তুলনামূলকভাবে হ্রাসকৃত, পরিবর্তনশীল পুঁজির কারণে, উদ্বৃত্ত মূল্যের হার তার আদি অবস্থার ১০০ শতাংশ হারে আর কোনভাবেই থাকে না- এবং যদি শেষ পর্যন্ত আমরা অনুমান করে নিই যে বণ্টিত উদ্বৃত্ত মূল্যের অন্তত অর্ধেক পরিমাণ অঙ্ক উৎপাদনের প্রতিটি ক্ষেত্রেই মূলধনীকৃত করা হয়েছে (বিভাগ-২ বাদে অর্থাৎ মার্কস যেটিকে বলছেন ভোগের উপায়ের উৎপাদন আর বিভাগ-১ হচ্ছে উৎপাদনের উপায়ের উৎপাদন- দ্বিতীয় বিভাগে মূলধনীকরণ ৫০ শতাংশকে ছাড়িয়ে যায় আর প্রথম বছরে ২৮৫-র ভেতরে ১৮৪-কে মূলধনীকৃত করা হয়)। কাজেই সেক্ষেত্রে নিম্নোক্ত ফলাফল পাওয়া দেবে :

প্রথম বছর

১.   ৫,০০০ C + ১,০০০ V + ১,০০০ S = ৭,০০০ উৎপাদনের উপায়।

২.   ১,৪৩০ C + ২৮৫ V + ২৮৫ S = ২,০০০ টিকে থাকার উপায়।

দ্বিতীয় বছর

৩.   ৫,৪২৮ ৪/৭ C + ১,০৭১ ৩/৭ V + ১,০৮৩ S = ৭,৫৮৩ উৎপাদনের উপায়।

৪.   ১,৫৮৭ ৫/৭ C + ৩১১ ২/৭ V + ৩১৬ S = ২,২১৫ টিঁকে থাকার উপায়।

তৃতীয় বছর

৫.   ৫, ৯০৩ C + ১,১৩৯ V + ১,১৭৩ S = ৮,২১৫ উৎপাদনের উপায়।

৬.   ১,৭২৬ C + ৩৩১ ২/৭ V + ৩৪২ S = ২,৩৯৯ টিঁকে থাকার উপায়।

চতুর্থ বছর

১.   ৬,৪২৪ C + ১,২০৫ V + ১,২৭১ S = ৮,৯০০ উৎপাদনের উপায়।

২.   ১,৮৭৯ C + ৩৫০ V + ৩৭১ S = ২,৬০০ টিঁকে থাকার উপায়।

এই যদি সঞ্চয়মূলক প্রক্রিয়ার একটি সত্যিকারের চিত্র হয়ে থাকে, উৎপাদনের উপায় (ধ্রুব/স্থির পুঁজি) দ্বিতীয় বছরে ঘাটতি দেখাবে ১৬, তৃতীয় বছরে ৪৫ এবং চতুর্থ বছরে ৮৮; একইভাবে, টিঁকে থাকার উপায় দ্বিতীয় বছরে উদ্বৃত্ত দেখাবে ১৬, তৃতীয় বছরে ৪৫ এবং চতুর্থ বছরে ৮৮।

উৎপাদনের উপায়ের জন্য এই নেতিবাচক ভারসাম্য আংশিকভাবে শুধুই কল্পিত হতে পারে। শ্রমের বর্ধনশীল উৎপাদন এটাই নিশ্চিত করে যে উৎপাদনের উপায় মূল্যের চেয়ে আয়তনে দ্রুত বাড়ে, অন্য কথায় বললে : উৎপাদনের উপায় দামে আরো সস্তা হয়। পুঁজির বস্তগত উপাদান, যা কিনা উৎপাদনের প্রযুক্তিগত উন্নয়নের জন্য দরকার- ব্যবহার মূল্য যদি তেমনটি হয়ে থাকে- তবে সেক্ষেত্রে আমরা অনুমান করে নিতে পারি যে নিম্নতর মূল্য সত্ত্বেও উৎপাদনের উপায়ের সংখ্যা একটি নির্দিষ্ট বিন্দু অবধি প্রগতিশীল সঞ্চয়ের জন্য যথেষ্ট হবে। অন্য সবকিছুর ভেতর এই প্রপঞ্চও মুনাফার হারের প্রকৃত হ্রাসকে ঠেকিয়ে রাখে এবং একটি নিতান্ত প্রবণতায় সংশোধন করে। যদিও আমাদের উদাহরণ এটাই দেখায় যে মুনাফার হারের হ্রাস শুধুই প্রতিবন্ধক হয়ে উঠবে না, একদম বন্ধও হয়ে যেতে পারে। অন্য দিকে, একই ঘটনা দামের নিরিখে এই পরিমাণ উদ্বৃত্ত দ্বারা সুপারিশকৃত হবার বদলে টিঁকে থাকার অনাক্রমণযোগ্য উপায়ের অনেক বেশি উদ্বৃত্তকে ইঙ্গিত করে। এরকম ঘটনার ক্ষেত্রে, আমাদের বিভাগ-২-এর পুঁজিপতিদের বাধ্য করতে হবে যেন তারা নিজেরাই উদ্বৃত্তকে ভোগ করে। এমনটি মার্ক্স অন্য নানা ক্ষেত্রেও হতে দিয়েছেন। যে যে ক্ষেত্রে এবং যতটা এই পুঁজিপতিরা জড়িত বা সংশ্লিষ্ট, সেসব ক্ষেত্রে কোন সঞ্চয় হবে না। হবে নিছকই পুনরুৎপাদন। অন্যথায় এই গোটা উদ্বৃত্তকে আমাদের অনাক্রমণযোগ্য ঘোষণা করতে হবে।

তবু আমাদের উদাহরণ থেকে কি এটা স্পষ্ট হচ্ছে না যে উৎপাদনের উপায়ের ক্ষতি পুষিয়ে নেওয়া অত সহজ নয়? আমাদের শুধু এটুকু অনুমান করে নিতে হবে যে বিভাগ-১-এর পুঁজিপতিরা একটি বৃহত্তর স্তর অবধি তাদের উদ্বৃত্তমূল্যকে মূলধনীকৃত করে। প্রকৃতপক্ষে, অনুমান করার পক্ষে এমন কোন বৈধ কারণ নেই- মার্ক্স যেমনটা অনুমান করেছিলেন যে প্রতিটি ক্ষেত্রেই পুঁজিপতিরা তাদের পুঁজি বা মূলধনের সাথে তাদের উদ্বৃত্ত মূল্যের শুধু অর্ধেক যুক্ত করে। শ্রম-উৎপাদনশীলতায় অগ্রগতি উদ্বৃত্ত মূল্যের প্রগতিমুখী ও বর্ধনশীল মূলধনীকরণের দিকে ভালভাবে এগিয়ে নিয়ে যায় বা যেতে পারে। পুঁজিপতি শ্রেণির জন্য ভোগ্যপণ্যের সুলভকরণে এই অনুমান যে অধিকতর অনুমোদনযোগ্য সেটাও মূলত প্রযুক্তিগত অগ্রসরতার ফলাফলসমূহের অন্যতম। ভোগযোগ্য আয়ের মূল্যে এই আপেক্ষিক অবনমন (মূলধনীকৃত অংশের সাথে তুলনা হিসেবে) অতঃপর এই শ্রেণির জন্য একই ধরনের বা এমনকি অধিকতর উচ্চ স্তরের জীবনযাপনের মানও অনুমোদন করতে পারে। উদাহরণস্বরূপ, আমরা উৎপাদক পণ্যের ক্ষতি পুষিয়ে নিতে পারি যদি উদ্বৃত্ত মূল্য ১-এর অনুরূপ একটি অংশ উৎপাদক পণ্যের ঘাটতি পূরণ করতে এই বিভাগের ধ্রুব/স্থির পুঁজির অংশে বদলি করা হয় (অন্যথায় এই অংশ ভোগ করা হয়ে যাবে)। যেহেতু এই উদ্বৃত্তমূল্য বিভাগের অন্য সব পণ্যের মতোই উৎপাদক পণ্যের অকৃত্রিম চেহারা নেয়, ১১ ৪/৭ অংশ বদলী হবে দ্বিতীয় বছরে, ৩৪ ভাগ বদলী হবে তৃতীয় বছরে এবং ৬৬ ভাগ বদলী হবে চতুর্থ বছরে। একটি সমস্যার সমাধান আর একটি সমস্যার সূচনা করে। একথা বলা বাহুল্য যে যদি বিভাগ-১-এর পুঁজিপতিরা সঞ্চয়ের জন্য তাদের ভোগের পরিমাণ আপেক্ষিক ভাবে সংযত করে, তবে বিভাগ-২-এ আনুপাতিক হারে অনাক্রমণযোগ্য ভোগ্যপণ্যের একটি বৃহত্তর অংশ জমা হবে; এবং এভাবেই ধ্রুব/স্থির পুঁজিকে তার অতীতের প্রযুক্তিগত ভিত্তির উপরও বাড়ানো বা বাড়িয়ে তোলাটা দিন দিন আরো দুঃসাধ্য হবে। বিভাগ-১-এর পুঁজিপতিরা যদি তাদের ভোগকে সংযত করে, বিভাগ-২-এর পুঁজিপতিরা অবশ্যই আনুপাতিক হিসেবে তাদের ব্যক্তিগত ভোগ তুলনামূলকভাবে বাড়াতে বাধ্য। বিভাগ-১-এর আওতায় বর্ধিত সঞ্চয়ের অনুমানকে তখন বিভাগ-২-এ মন্দীভূত সঞ্চয়ের দ্বারা পরিপূরিত হতে হবে, এক বিভাগের প্রযুক্তিগত অগ্রগতি আর এক বিভাগের মন্দার দ্বারা সূচিত হবে।

উপরোক্ত ফলাফলগুলো নিছকই দৈবের ইশারা নয়। মার্কসের বৃত্তে আমরা যে সমন্বয়গুলো সাধনের চেষ্টা করেছি তা’ নিছকই প্রযুক্তিগত অগ্রগতিকে চিত্রিত করতে চেয়েছে। যেমনটা তিনি (মার্ক্স) নিজেই স্বীকার করেছেন যে এই সমন্বয়কে অবশ্যই পরিবর্তনশীল পুঁজির বিপরীতে ধ্রুব/স্থির পুঁজির আপেক্ষিক বৃদ্ধির সঙ্গী হতে হবে। এখানেই একটি নির্দিষ্ট অনুপাতের ধারাবাহিক পরিমার্জনার প্রয়োজন দেখা দেয় যে অনুপাতে মূলধনীকৃত উদ্বৃত্তমূল্য ধ্রুব/স্থির পুঁজি এবং পরিবর্তনশীল পুঁজিতে বন্টিত হতে পারে। মার্কসের বৃত্তে, অবশ্য, পুঁজিপতিরা তাদের ইচ্ছানুসারে এই বন্টণগুলো করার অবস্থানে থাকে না যেহেতু তাদের উদ্বৃত্তমূল্যের বস্তগত রূপ পুঁজিবাদের আঙ্গিকসমূহের পূর্বনির্ধারণ করে থাকে। যেহেতু মার্কসের অনুমান অনুযায়ী উৎপাদনের যাবতীয় বিস্তারই এর নিজস্ব, পুঁজিবাদী পদ্ধতিতে উৎপাদিত উৎপাদন এবং টিঁকে থাকার উপায় দ্বারা নিরঙ্কুশভাবে সামনে অগ্রসর হয়- সেহেতু এই দুই বিভাগের পুঁজিপতি এবং শ্রমিক ছাড়া বাস্তবিকই উৎপাদনের আর কোনো স্থান বা আঙ্গিক নেই বা নেই অন্য কোন ভোক্তা। এবং যেহেতু, অন্য দিক থেকে দেখলে, সঞ্চয়মূলক প্রক্রিয়ার মসৃণ কর্মকাণ্ড অর্থের আবর্তনের উপর নির্ভর করে যা এই দুই বিভাগের দ্বারা উৎপাদিত মোট উৎপাদনের সবটাই শোষণ করে, ফলাফলস্বরূপ বর্ধিত পুনরুৎপাদনের প্রযুক্তিগত আকৃতি উদ্বৃত্তপণ্যের বস্তগত আঙ্গিক দ্বারা কঠোরভাবে নির্দেশিত হয়। অন্যভাবে বললে : মার্কসের বৃত্ত অনুযায়ী, প্রসারিত উৎপাদনের প্রযুক্তিগত সংগঠন এমন হতে পারে বা হওয়াই উচিত যাতে করে বিভাগ-১ ও বিভাগ ২-এর আওতাধীন মোট উদ্বৃত্তমূল্যের যথাযথ ব্যবহার করা যায়। এই প্রসঙ্গে আমাদের অবশ্যই মনে রাখতে হবে যে এই দুই বিভাগই শুধুমাত্র পারস্পরিক বিনিময়ের মাধ্যমে উৎপাদনের নিজ নিজ উপাদানগুলো পেতে পারে। এভাবেই উদ্বৃত্তমূল্যের স্থির বা পরিবর্তনশীল পুঁজির জন্য প্রদেয় বণ্টন যা কিনা মূলধনীকরণের জন্য নির্দিষ্ট করা হয়, এবং একইভাবে উৎপাদন ও টিঁকে থাকার জন্য (শ্রমিকদের জন্য) বিভাগ ১ ও ২-এ অতিরিক্ত বা বাড়তি বণ্টন অগ্রিমভাবেই প্রদান করা হয়ে থাকে এবং বৃত্তে বর্ণিত এই দুই বিভাগের অভ্যন্তরীণ সম্পর্ক দ্বারা নির্ধারিত হয়ে থাকে- বস্তগত এবং মূল্যগত উভয় নিরিখেই। এই সম্পর্কগুলো নিজেরাই, যা-হোক, উৎপাদনের একটি স্থির, নির্ধারিত ও প্রযুক্তিগত সংগঠন প্রতিফলিত করে। এটা এ-ও বোঝায় যে মার্কসের বৃত্তের উপর করা অনুমানের ভিত্তিতে, প্রতিটি ক্ষেত্রে প্রদত্ত উৎপাদনের কৌশলগুলো বর্ধিত পুনরুৎপাদনের পরবর্তী সময়পর্বগুলো পূর্বনির্ধারণ করে থাকে, অবশ্য যদি সঞ্চয় অব্যাহত থাকে। এটা অনুমান করে নিয়ে, মার্কসের বৃত্ত অনুযায়ীই, বলা যায় যে, পুঁজিবাদী উৎপাদনের প্রসারণ সর্বদাই উদ্বৃত্তমূল্যের মাধ্যমে সম্পাদিত হয়ে থাকে যা আদিতে পুঁজির আঙ্গিকে উৎপাদিত হয়েছিল, এবং অধিকতর- অথবা, উল্টো করে বললে- যে এক বিভাগের সঞ্চয় অপর বিভাগের সঞ্চয়ের উপর কঠোরভাবে নির্ভরশীল। এবং সেজন্যই স্থির/ধ্রুব পুঁজি থেকে পরিবর্তনশীল পুঁজি অবধি উৎপাদনের প্রযুক্তিগত সংগঠনে কোন বদলই সম্ভব নয়।

আমরা আরো একটি পন্থায় আমাদের যুক্তি সাজাতে পারি : এটা পরিষ্কার যে পরিবর্তনশীল পুঁজির তুলনায় স্থির পুঁজির দ্রুততর বৃদ্ধি বা সোজা কথায় পুঁজির জৈব সংগঠনের প্রগতিশীল রূপান্তর বিভাগ-২-এর আওতায় সংঘটিত উৎপাদনের তুলনায় বিভাগ-১-এর আওতায় অবশ্যই দ্রুততর প্রসারণের বস্তগত আঙ্গিক ধারণ করবে। তবু মার্কসের বৃত্ত, যেখানে দুই বিভাগের কঠোর অনুরূপতা স্বতঃসিদ্ধ, তা উভয় বিভাগেই সঞ্চয়ের হারে যে কোন ওঠা-পড়া নিবৃত্ত করে। এমনটা অনুমান করা খুবই বৈধ যে প্রগতিশীল সঞ্চয়ের প্রযুক্তিগত শর্তাবলীর আওতায় সমাজ তার উদ্বৃত্তমূল্যের চিরবর্ধনশীল অংশগুলো বিনিয়োগ করবে যা বিভাগ-২-এর বদলে বিভাগ-১-এর জন্যই নির্দিষ্ট করা থাকবে। এই দুই বিভাগই একই সামাজিক উৎপাদনের একমাত্র শাখা হিসেবে- ‘থোক পুঁজিপতিদের’ পরিপূরক উদ্যোক্তা হিসেবে,- প্রযুক্তিগত কারণে আপনি যদি এক বিভাগ থেকে আরেক বিভাগে পুঁজি বা সঞ্চয়ের এমন প্রগতিশীল স্থানান্তর বা বদলী চান, তবে উদ্বৃত্তমূল্যের একটি অংশ পুরোপুরি বা সামগ্রিকভাবেই সুসাধ্য কাজ হিসেবে দেখা দেবে। বিশেষত, যেসব ক্ষেত্রে এটি পুঁজির প্রকৃত অনুশীলন হিসেবে দেখা দেয়। তবু এই অনুমান ততটা সময় পর্যন্তই করা সম্ভব যতটা সময় অবধি আমরা উদ্বৃত্তমূল্যকে বিশুদ্ধভাবেই শ্রেফ দামের নিরিখে এবং মূলধনীকরণের জন্য বিবেচনা করি। মার্কসের বৃত্ত, অবশ্য, এটাই বুঝিয়ে থাকে যে উদ্বৃত্তমূল্যের এই অংশটুকু একটি নির্দিষ্ট বস্তগত আঙ্গিকে দেখা দেয় যা এর মূলধনীকরণকে সুপারিশ করে থাকে। এভাবেই বিভাগ-২-এর উদ্বৃত্তমূল্য টিঁকে থাকার উপায় হিসেবে থাকে এবং যেহেতু এই উদ্বৃত্তমূল্য শুধুমাত্র বিভাগ-১ দ্বারাই ব্যবহৃত হতে পারে, বিভাগ-২ থেকে বিভাগ-১-এ উদ্বৃত্ত মূল্যের মূলধনীকৃত অংশটুকুর অভীষ্ট হস্তান্তরের সম্ভাবনা বাতিল করা হয়। দুটো কারণ আছে এই বাতিল করার। প্রথমত, বিভাগ-১-এর কাছে এই উদ্বৃত্তমূল্যের বস্তগত আঙ্গিক একেবারেই মূল্যহীন এবং দ্বিতীয়ত, এই দুই বিভাগের ভেতর বিনিময়ের সম্পর্কের কারণে বিভাগ-১-এর উৎপাদিত পণ্যের সমতূল্য হস্তান্তর বিভাগ-২-এ ঘটাবার প্রয়োজন দেখা দেবে। এজন্যই মার্কসের বৃত্তের আওতায় বিভাগ-২-এর পরিপ্রেক্ষিতে বিভাগ-১-এর উৎপাদনের অধিকতর দ্রুত কোন প্রসারণ সম্ভব নয়।

(চলবে)

 

ফেসবুকের মাধ্যমে মন্তব্য করুন

লেখাগুলো সামাজিক মাধ্যমে শেয়ার করুনঃ

LEAVE YOUR COMMENT

Your email address will not be published. Required fields are marked *

hijal
Close